অক্টোবর ১৯, ২০২১
মানচিত্র
কোভিড ১৯

ভারতে করোনা মহামরির মধ্যে অতিধনীদের আয় আরও বেড়েছে

ভারতে করোনা মহামরির মধ্যে অতিধনীদের আয় আরও বেড়েছে

ভারতে করোনা মহামরির মধ্যে অতিধনীদের আয় আরও বেড়েছে। বৈষম্য চোখে পড়ার মতো। আয় কমেছে অপ্রশিক্ষিত কর্মীদেরও। এ কর্মীরা দীর্ঘদিন ধরে বেকারত্ব এবং প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে লড়াই করছেন। সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামে উপস্থাপিত একটি প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরেছে দাতব্য সংস্থা অক্সফাম।

‘দি ইনইক্যুয়ালিটি ভাইরাস’ শীর্ষক এ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লকডাউন চলাকালীন কেবল ২০২০ সালের এপ্রিলে ভারতের বিলিয়নেয়ারদের সম্পদ ৩৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে এ সময়ে দেশটির ৮৪ শতাংশ পরিবার বিভিন্ন ধরনের আয়ের ক্ষতির মুখোমুখি হয়েছে এবং প্রতি ঘণ্টায় ১ লাখ ৭০ হাজার মানুষ তাদের চাকরি হারিয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, লকডাউন কার্যকর হওয়ার সময় গত বছরের মার্চ থেকে ভারতের শীর্ষ ১০০ বিলিয়নেয়ারের যে পরিমাণ সম্পদ বেড়েছে, তা দিয়ে দেশটির ১৩ কোটি ৮০ লাখ দরিদ্র জনগণের প্রত্যেককে ৯৪ হাজার ৪৫ রুপি করে দেয়া যেত।

অক্সফাম বলেছে, দেশে ক্রমবর্ধমান বৈষম্য অত্যন্ত মারাত্মক। মহামারি চলাকালীন ১ ঘণ্টায় রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানি যে অর্থ আয় করেছেন, তা একজন অপ্রশিক্ষিত কর্মীর আয় করতে ১২ হাজার বছর লাগবে। তাছাড়া আম্বানি প্রতি সেকেন্ডে যে আয় করেছেন, তা একজন কর্মীর আয় করতে তিন বছর লাগবে।

অক্সফামের মতে, সংকট শুরু হওয়ার পর বিশ্বের শীর্ষ ১০ বিলিয়নেয়ারের বৃদ্ধি পাওয়া সম্পদ ভাইরাসজনিত কারণে পৃথিবীর যে কাউকে দারিদ্র্যের কবলে পড়ার হাত থেকে রক্ষা এবং করোনার ভ্যাকসিনের অর্থ জোগানোর জন্য যথেষ্ট পরিমাণে বেশি। এ ধরনের বৈষম্য দূর করার জন্য দাতব্য সংস্থাটি ভারতে অবিলম্বে ন্যূনতম মজুরি সংশোধন এবং নিয়মিত বিরতিতে এগুলো বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছে।

Related posts

ঢাকায় করোনা আক্রান্তদের ৬৮ শতাংশ নমুনায় ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট

sahadat Hossen

আজ থেকে মডার্নার দ্বিতীয় ডোজের টিকাদান শুরু

Maydul Islam

মানসিক চাপে করোনা রোগীর আত্মহত্যা

srabon

Leave a Comment

Translate »